শিরোনামঃ
নোবিপ্রবিতে ‘তর্কযুদ্ধ সিজন-৪ এর ভাটির বীর, বারোভূঁইয়ানামা’ শুরু কচুয়ায় কমিউনিটি পুলিশিং ডে ২০২০ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত স্বরূপকাঠিতে কমিউনিটি পুলিশিং-ডে উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা।। কালীগঙ্গা নদীতে ফেরী সার্ভিস অনুমোদন হওয়ায় স্বরূপকাঠির গুয়ারোখায় দোয়া মাহফিল।। মুজিববর্ষের মূলমন্ত্র, কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র”এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ভোলায় কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ উদযাপন। বরিশালের বাবুগঞ্জে মা ইলিশ নিধনের অপরাধে ৮ জনকে কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত।। ৯৯৯ তে কল বরিশালে চিকিৎসার মেমো চাওয়ায় রোগীর স্বজনকে মারলো সাউথ বেঙ্গল ক্লিনিক মালিক। অসুস্থ অবস্থায় জনগনের টানে মেডিকেল থেকে ফিরলেন ইউপি চেয়ারম্যান! বরিশালের বানারীপাড়ায় শতভাগ মাস্ক পড়া নিশ্চিত ও জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরন করেন জিয়াউল হক মিন্টু।। ভোলার বোরহানউদ্দিনে মহানবী মুহাম্মদ (সা:) কে নিয়ে ফ্রান্সে ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শণ করার প্রতিবাদে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত
রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন
Notice :
ডোমেইন হোস্টিং সহ মাত্র 5 হাজার টাকায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ওয়েবসাইট বানান।আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু, Our Bd It তে আপনাকে স্বাগতম। আপনি কি সাংবাদিক? নিজের একটা অনলাইন নিউজ পোর্টাল ওয়েবসাইট বানাতে চান? তাহলে আপনি ঠিক জায়গাতেই এসেছেন।Our Bd It আপনার চাহিদা মোতাবেক অনলাইন নিউজ পোর্টাল ওয়েবসাইট বানিয়ে দিবে। Our Bd It শুধু অনলাইন নিউজ পোর্টাল ওয়েবসাইট বানিয়েই দায়িত্ব শেষ করে ফেলে না, সব সময় আপনার বন্ধুর মত আপনার পাশে থাকবে ইন শা আল্লাহ।আরো বিস্তারিত জানতে Our BD It এর ফেসবুক পেজে মেসেজ দিন।Our BD It এর ফেসবুক পেইজ লিংক https://facebook.com/ourbdit.official

বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।

অর্থকষ্টে নবজাতক বিক্রি করে মা এখন কান্না করছে

রিপোটারের নাম / ১১১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০
hasina37

বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।

আসাদ হোসেন রিফাত,লালমনিরহাটঃ

টাকার অভাবে মাত্র ২০ হাজার টাকায় নাড়ি ছেড়া ধন নবজাতক বিক্রি করে ঋন পরিশোধ করলেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হাসিনা বেগম (৩৫)।
হাসিনা বেগম আদিতমারী উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের টেপারহাট গ্রামের জোকতার আলীর স্ত্রী।

তিনি একই এলাকার তালুক হরিদাস নয়াটারী গ্রামের মৃত আজিজার রহমানের মেয়ে।
জানা গেছে, ১৮/২০ বছর আগে একই গ্রামের টেপারহাট গ্রামের জোকতার আলীর সাথে বিয়ে হয় হাসিনার। কিন্তু হাসিনা ছিলেন জোকতারের দ্বিতীয় স্ত্রী। বিয়ের কিছু দিন স্বামীর বাড়িতে থাকলেও পরে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হাসিনার ঠাঁই হয় তালুক হরিদাস নয়াটারী বাবার বাড়িতে।

সংসারের খরচ বহন না করলেও স্বামী জোকতার সম্পর্ক রেখেছিল হাসিনার সাথে। এরই মাঝে তার সংসারে এক মেয়ে ও দুই ছেলের জন্ম হয়।

বড় মেয়ে রোসনার বিয়ে দেন।
ফুটো টিনের ওপর পলিথিন সাঁটানো একমাত্র ঝুপড়ি ঘরে দুই ছেলে হাসান ও রাসেলকে নিয়ে কৃষি শ্রমিকের কাজ করে সংসার চালান বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হাসিনা বেগম। করোনাকালে এবং মাঠে কাজ না থাকায় বেকার কৃষি শ্রমিক হাসিনা বেগম স্থানীয়ভাবে ঋন করে অনাহারে সংসার চালান। দেনা হয়ে যায় প্রায় ১০ হাজার টাকা। এরই মাঝে গত মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) সকালে হাসিনা বেগম একটি ফুটফুটে ছেলে সন্তান প্রসব করেন। অভাবের মাঝে সন্তানকে প্রতিপালনের চিন্তায় পড়েন হাসিনা। তবে তার ভাই নিঃসন্তান কেরামত আলী বোনের সন্তানকে নিতে ইচ্ছা প্রকাশ করেন। কিন্তু প্রতিবেশী অধির চন্দ্র তার শ্বশুর বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট এলাকার জনৈক দম্পতিকে সন্তানটি দিতে বলেন। এতে বাধা দেন হাসিনা বেগম ও তার বড় ছেলে হাসান।

অধির চন্দ্র রাজারহাটের ওই দম্পত্তির হাতে নবজাতককে তুলে দিতে হাসিনার স্বামী জোকতার আলীকে ম্যানেজ করেন। এতে হাসিনা ও তার ছেলে রাজি না হলেও জোকতার ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে জোরপুর্বক সন্তানকে তুলে দেন রাজাহাটের দম্পত্তির হাতে। নবজাতক ভাইকে আটকানোর চেষ্টা করে বাবার গালমন্দের শিকার হন হাসান। নবজাতক বিক্রির টাকায় ঋনের ১০ হাজার পরিশোধ করেন হাসিনা বেগম। কিন্তু নাড়ি ছেড়া ধন হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। ছোট ভাইকে রক্ষায় ব্যর্থ হয়ে বড় ভাই হাসান বাবা মায়ের সাথে অভিমান করে ঘর ছেড়ে চলে যায়।

হাসিনার বড় ছেলে হোটেল শ্রমিক হাসান বলেন, কষ্ট হলেও ভাইকে বিক্রি করতে নিষেধ করায় বাবা আমাকে ত্যাজ্য করার হুমকিসহ মারপিট করার চেষ্টা করেছে। অর্থকষ্টে নবজাতক বিক্রি করে মা এখন কান্না করছে। এ দুঃখে আমি বাড়ি ছেড়ে মালিকের হোটেলেই থাকি। টাকা ২০ হাজার পেলে ভাইকে ফেরত নিতে পারতাম। কিন্তু টাকা তো নেই।

হাসিনার ভাই কেরামত আলী বলেন, বিয়ের ১০ বছর অতিবাহিত হলেও আমাদের সংসারে সন্তান নেই। ইচ্ছা ছিল বোনের সন্তানকে নিতে। কিন্তু বোনের স্বামী টাকার বিনিময়ে নবজাতক ভাগিনাকে অন্যের হাতে তুলে দিয়েছেন।

বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী হাসিনা বেগম বলেন, গরিব মানুষ খাবার পাই না। প্রতিবেশী অধিরের আত্নীয়ের কাছে দিয়েছি। তারা ভালোভাবে দেখবে। আমাকে ২০ হাজার টাকা দিয়েছে। তার মধ্যে গতকাল হাওলাতি (ঋনের) ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করেছি।

স্থানীয় স্কুল শিক্ষক রোখসানারা মুক্তা বলেন, মূলত অভাবের কারণেই নবজাতককে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন হাসিনা বেগম। বিষয়টি প্রশাসনকে অবগত করেছি। তাকে আর্থিক সহায়তা করলে মাতৃত্ব বিক্রি করতে হতো না।

বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।

বিস্তারিত জানতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন।